আপনি জানেন কি? মানব দেহ সর্ম্পকিত কিছু বিস্ময়কর তথ্য-





 হাতের কব্জি থেকে কুণুই পর্যন্ত দৈর্ঘ্য পায়ের পাতার দৈর্ঘ্যর সমান।

 সারা দিনে মানুষের   ১,০১,০০০ বার হৃদস্পন্দন হয়ে থাকে, সেই হিসেবে গড়ে মানুষের হৃদপিন্ড ৩ বিলিয়ন বার স্পন্দিত হয় এবং প্রায় ৪০০ মিলিয়ন লিটার রক্ত পরিবহন করে।

জিহ্বা দিয়ে কুণুই চাঁটা প্রায় অসম্ভব, ব্যতিক্রম খুবই কম

মানুষের মাথায় ২২ টি হাড় রয়েছে।

গড়ে আমরা প্রায় ২৩,০০০ বার  নিঃশ্বাস নিয়ে থাকি।

নিঃশ্বাসের ফলে প্রতি মিনিটে ০.৬ গ্রাম কার্বন ডাই অক্সাইড উৎপাদিত হয়।

গড়ে একজন মানুষ সর্বোচ্চ এক মিনিট শ্বাস বন্ধ করে থাকতে পারে, নিঃশ্বাস বন্ধ রাখার বিশ্ব রেকর্ড ২১ মিনিট ২৯ সেকেন্ডের ডেভিড মার্লিনের

গড়ে একজন মানুষ ৫০০০ শব্দ উচ্চার করে থাকে, ৮০% ভাগই নিজে নিজে কথা বলে থাকে।

বিগত ১৫০ বছরে শিল্প-উন্নত দেশের মানুষের গড় উচ্চতা ১০ সেমি. (৪ ইঞ্চি) বৃদ্ধি পেয়েছে।

১৯ শতকের সবচেয়ে লম্বা জাতি আমেরিকানরা, গড় উচ্চতা ১.৭১ মিটার বা ৫ ফিট ৬ ইঞ্চি।

আপনি জানেন কি? মানব দেহ সর্ম্পকিত কিছু বিস্ময়কর তথ্য-

বর্তমানে আমেরিকানদের গড় উচ্চতা ৫’৯” , সুইডিশদের ৫’১০”, ডাচদের ৫’১১” ।

মানব দেহে যে পরিমান পানি থাকে তা থেকে যদি কোন কারনে ১% পানির ঘাটতি হয় তখনই আমাদের তৃষ্ঞা পায়।



চোখ খোলা রেখে হাচি দেয়া অসম্ভব।

অন্য কাউকে হাই তুলতে দেখলে ৫৫% মানুষ ৫ মিনিটের মধেই হাই তোলে।

মানুষ খাবার ছাড়া প্রায় এক মাস বাচতে পারে কিন্তু পানি ছাড়া এক সপ্তাহের বেশি বাচে না।

প্রতি দিন গড়ে একজন পুরুষের ৪০ টা এবং মেয়েদের প্রায় ৭০ টা চুল পরে যায়।

একজন মানুষকে কতল করার পর ৮ সেকেন্ড সচেতন থাকে।

চোখের পলক ফেলতে যে পেশীটি কাজ করে সেটা হল আমাদের শরীরের সবচেয়ে দ্রুত গতির পেশী, এটা প্রতি সেকেন্ডে আমাদের ৫ বার পলক ফেলতে সহয়তা করে।

গড়ে মানুষ প্রতিদিন ১৫,০০০ বার পলক ফেলে, নরীরা পুরুষের দ্বিগুন সংখ্যক পলক ফেলে।

লালা মিশ্রিত হওয়ার আগ পর্যন্ত আমরা খাবারের স্বাদ পাই না।

লিভার শরীরের অভ্যন্তরে সবচেয়ে বড় অঙ্গ । ত্বক হচ্ছে সবচেয়ে বড় অঙ্গ।

মধ্যমা আঙগুলের নখ (পুনর্নব) সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল। এটা কনিষ্ঠ আঙ্গলীর নখের থেকে চার গুন দ্রুত বৃদ্ধি পায়।

নখ প্রতি সেকেন্ডে ১ ন্যানোমিটার (০.০০০ ০০০ ০০১ মি./সে.) এবং চুল ৪ ন্যানোমিটার (০.০০০ ০০০ ০০৪ মি./সে.)  প্রতি সেকেন্ডে বৃদ্ধি পায় ।

আপনি জানেন কি? মানব দেহ সর্ম্পকিত কিছু বিস্ময়কর তথ্য-

প্রায় ১৩% মানুষই বামহাতী ।

নবজাত শিশুর মাথার ওজন তার সমস্ত শরীরের ওজনের একচর্তুথাংশ।

জন্ম থেকে বয়সের সাথে সাথে মানুষের চোখের আকার বড় হয় না সমান থাকে।



প্রতিটি মানুষের হস্ত রেখার(finger print) মত জিহ্বার রেখার (tongue print) আলাদা।

১৮ সপ্তাহ বয়সেই মানব ভ্রূনে হস্ত রেখা(finger print) দেখা যায়।

একজন মানুষের শরীরের সমস্ত DNA যদি সোজা করা হয় তার দৈঘ্য ৬০০০ বার পৃথিবী থেকে চাদের দৈঘ্যের সমান।

আমরা আসলে আমাদের চোখ দিয়ে দেখি না –আমরা মস্তিস্ক দিয়ে দেখি। চোখ মস্তিস্কের ক্যামেরার মত কাজ করে।

সরা দুনিয়াতে যত বদহজমের ঔষধ বিক্রি হয় তার ৪০% ক্রেতাই আমেরিকানরা ।

মানবদেহে ৪০০ অনুজীব বসবাস করে।

মেয়েদের থেকে পুরুষেরা ৩ -৪ বার বেশি মন পরিবর্তন করে ।

৮-১০ সপ্তাহের আগে নবজাতক শিশু কাঁদলেও চোখের পানি পড়ে না।

৬০ বছর বয়সের পর মানুষের ৫০% স্বাদ গ্রন্থি নষ্ট হয়ে যায়।



গড়ে একজন মানুষের সারা জীবনে ৫৯০ মাইল চুল জন্মায়।

আপনি জানেন কি? মানব দেহ সর্ম্পকিত কিছু বিস্ময়কর তথ্য-

মানুষের দুই নাসারন্ধ্র দুই রকমের ঘ্রান গ্রহন / অনুধাবন করে, বাম নাসারন্ধ্রের চেয়ে ডান নাসারন্ধ্র আরামদায়ক ঘ্রান গ্রহন/অনুধাবন করে।

প্রতি ঘন্টায় মানব দেহের প্রায় ১ বিলিয়ন কোষ প্রতিস্থাপিত হয়।

ফরেনসিক বিশেষজ্ঞগন এক টুকরো চুল থেকে ঐ লোকের লিঙ্গ, বয়স, জাতি ইত্যাদি নির্ধারন করতে পারেন।

৩০ বছরের পর থেকে মানব দেহ সংকুচিত/ছোট হতে শুরু করে।

মানুষের দাঁত পাথরের চেয়েও শক্ত।

মানুষের হাড় কংক্রিটের চেয়েও শক্ত।

পাকস্থলিতে যদি প্রতি দুই সপ্তাহ অন্তর অন্তর মিউকাস (Moucous) / শ্লেষমা এর স্তর সৃষ্টি না হত তাহলে পাকস্থলিই নিজেকে নিজে হজম করে ফেলতো।



পুরুষরা মহিলাদের থেকে ৪০% বেশি ঘামায়।

মেধাবী মানুষের চুলে কপার এবং জিংক এর পরিমান অন্যদের থেকে বেশি থাকে।

মানব মস্তিষ্কের ১/৪ অংশ ব্যবহৃত হয় চোখ নিয়ন্ত্রনে।

ব্যথা ৩৫০ ফিট/সেকেন্ড বেগে শরীরে ধাবিত হয়।

আপনার উচ্চতাকে ৮ দিয়ে ভাগ করলে আপনার মাথার দৈর্ঘ্য বের হবে।

মানুষের শরীরে যে পরিমান পরিমান চর্বি আছে তা দিয়ে ৮ টি সাবান তৈরি করা যায়।

মানব মস্তিষ্কের ধারনক্ষমতা ৪ টেরাবাইটেরও বেশি।

জিহ্বা মানব দেহের শক্তিশালী পেশী।

মানবদেহ প্রতি সেকেন্ডে ১৫ মিলিয়ন লহিত রক্ত কনিকা ধ্বংশ এবং সৃষ্টি হয়।

আপনার চুল অন্য সময়ের চেয়ে সকাল বেলায় বেশি বৃদ্ধি পায়।